নেইল প্যাটেল
নেইল প্যাটেল

কে এই 🎯ডিজিটাল মার্কেটার নেইল প্যাটেল !

বারংবার ব্যর্থতা যাকে দমাতে পারেনি ডিজিটাল মার্কেটার হিসেবে কাজ করেন অথচ নেইল প্যাটেলের নাম শুনেন নাই এমন মানুষ এ যুগে পাওয়া খুবই দুষ্কর । ডিজিটাল বিপণন বিশেষজ্ঞ এবং ইন্টারনেট বিপণনকারীদের মধ্যে তার নামটি খুব পরিচিত । যদি আমরা এই মুহূর্তে সেরা কয়েকজন ডিজিটাল মার্কেটার বা ব্লগারের কথা চিন্তা করি প্রথমেই যে নামটি আমাদের সবার মনে আসবে তা হল #Neil_Patel , . তিনি এমন একজন ব্যক্তি যে সন্তুষ্টিতে বিশ্বাসী না , পরিপূর্ণতায় বিশ্বাসী । যেকোনাে কাজকে নিখুঁতভাবে সম্পন্ন করতে তিনি প্রতিটি ব্যবসায়ের কৌশল ভালােভাবে রপ্ত করে তা যথাসময়ে প্রয়ােগ করেন । আর এর জন্যই হয়ত আজ তিনি সফল । নানা চরাই – উতরাই পেরিয়ে নিজের লক্ষ্যে পৌঁছেছেন ।

১৯৮৫ সালের ২৪ শে এপ্রিল ইংল্যান্ডের লন্ডনে নেইল প্যাটেল জন্মগ্রহণ করেন । পরবর্তীতে তিনি বাবা , মা এবং বােনকে নিয়ে ক্যালিফোর্নিয়ায় চলে আসেন । বাবার সীমিত আয়ে তাদের পুরাে পরিবারের ভরণ – পােষণ চলতাে , ফলে সংসারে অভাব না থাকলেও একটা সচ্ছলতা ছিল না । জীবন যুদ্ধের লড়াই সংগ্রামের মধ্যদিয়েই যেতে হয়েছে তার পুরাে পরিবারকে । তার মামার বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা ছিল । ব্যস্ততার কারণে তিনি সেগুলাে ঠিকঠাক দেখাশুনা করতে পারতেন না । নেইলের মা তার ভাইয়ের ডে – কেয়ার ব্যবসা পরিচালনার দায়িত্ব নেন । এ ব্যবসা থেকে তার মায়ের বেশ ভালাে উপার্জিল শুরু হয় । নেইলের বাবা – মায়ের দুজনের মাসিক আয় তখন পরিবারের জন্য যথেষ্ট হলেও তারা সন্তুষ্ট ছিলেন না । তারা ছিলেন অনেক বেশি উচ্চাকাঙ্ক্ষী । নেইল প্যাটেল সর্বদা একটি সমৃদ্ধ জীবনযাপনে বাস করতে চেয়েছিলেন যার জন্য তিনি শৈশবকাল থেকেই বিভিন্ন কাজ করা শুরু করেন ।

অর্থ আয়ের জনা তিনি শিক্ষার্থীদের কাছে মিউজিক সিড়ি বিক্রি করতেন । বেশি অর্থোপার্জনের জন্য তিনি ব্ল্যাক বক্স বিক্রি করা শুরু করেন । এই ব্যবসায় তার বেশ লভি আসতে থাকে কিন্তু যখন তিনি বুঝতে পারেন যে এটি দীর্ঘমেয়াদী চলবে না তখন তিনি পুনরায় মােটরগাড়ির যন্ত্রাংশ বিক্রি শুরু করেন । এরপর তিনি ফার্ম ব্যবসা শুরু করেন কিন্তু কিছুদিন পর এই ব্যবসাও গুটিয়ে নেন । কোয়ালিটি সিস্টেমে কাজ শুরু করার পর কিছুদিন পর দেখলেন এ কাজটাও বেশ বিরক্তিকর , কারণ দ্বারে দ্বারে গিয়ে মানুষের পরিষেবা দিতে হয় । তার বােন তাকে ওরাকল কনসাল্টিং এ জব দেয় । কিন্তু কিছুদিন পর তিনি সেখান থেকেও বিদায় নেন এবং মনস্টার ডট কমে জয়েন করেন । নেইল এখান থেকে জীবনের অর্থ খুঁজে পান । খুঁজে পান সফল হওয়ার মূলমন্ত্র । এই জনা তিনি পুনরায় চাকরি খোঁজার পরিবর্তে মনস্টার ডট কম থেকে দুর্থ উপার্জনের নানা কৌশল ভালােভাবে রপ্ত করতে থাকেন । একপর্যায়ে অনলাইন মার্কেটিং – এর প্রতি তার ঝোঁক বাড়ে । তিনি তার বােনের স্বামীর সাথে ভিশন ওয়েব হােস্টিং নামে একটি হােস্টিং সংস্থায় প্রায় মিলিয়ন ডলার বিনিয়ােগ করেন ।

কিন্তু ভাগ্যের নির্মম পরিহাস এখানেও তিনি ব্যর্থ হন । হােস্টিং ব্যবসায় ক্ষতির শিকার হয়ে তিনি আবার ‘ ক্রেজি এগ ‘ নামে একটি সংস্থা গড়ে তুলেন । সংস্থাটি নিয়ে প্রচুর গুঞ্জন তৈরি হওয়ায় কেউই এতে বিনিয়ােগ করতে সাহস দেখায় না । তারপরে তিনি আবার ইন্টারনেট বিপণন সংস্থা শুরু করলেন । এবং এটিই ছিল প্যাটেলের জীবনে নেয়া অন্যতম সেরা সিদ্ধান্ত । ব্যর্থতাকে জয় করে দৃঢ় প্রচেষ্টায় নেইল প্যাটেল এখন সফলদের একজন । মাত্র ১৬ বছর বয়সে প্রতি মাসে ৩৫০০ ডলার উপার্জন করেছেন , এই বয়সী অনেকের কাছে যা নিহক স্বপ্ন মলে হবে । নেইল প্যাটেল ‘ Kissmetrics ” , ‘ Hello Bar এবং ‘ Crazy Egg এর সহ – প্রতিষ্ঠাতা । তিনি নিউইয়র্ক টাইমসের বেস্ট সেলার লেখক এবং উদ্যোক্তা । ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল তাকে শীর্ষ প্রভাবশালী অনলাইন মার্কেটার বলে অভিহিত করেছে । ফোর্বস – এর মতে , তিনি বিশ্বের সেরা শীর্ষ ১০ বিপণনকারীদের একজন ।মনে করে তার হাতে বিশ্বের ১০০ টি ব্যবসা সফল প্রতিষ্ঠান তৈরি হয়েছে ।

সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রপতি বারাক ওবামা ৩০ বছরের কম বয়সী ১০০ সফল উদ্যোক্তাদের মধ্যে প্যাটেলকে শীর্ষ সফল অক্লাইন মার্কেটার হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছেন । বারংবার ব্যর্থতা স্বপ্নবাজ এই তরুণকে দমিয়ে রাখতে পারেনি । মাত্র ৩৬ বছর বয়সী এই তরুণ এখন আনুমানিক ৩০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের মালিক । দৃঢ় প্রত্যয় ও আত্মবিশ্বাস নিয়ে কোন কাজ শুরু করলে একসময় যে সফলতা আসে নেইল প্যাটেল যেন তারই প্রমাণ । এই মুহূর্তে প্যাটেলের পক্ষে সবচেয়ে বড় অর্জন তঁার স্মার্ট কাজ । তঁার অত্মিপ্রত্যয় ও শ্রম আমাদের অনুপ্রেরণার উৎস ।

About admin

Check Also

অ্যামাজন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং

Amazon Affiliate করছেন? জেনে নিন কিভাবে সেল বাড়াবেন

আর্টিক্যালের স্ট্রাকচার ভালো হলে কনভার্সন রেট ভালো হয়। সেল বেড়ে যায়। কেন জানেন? ওয়েল, স্বীকার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *